হাওড়ের ইরি-বোরো ধানের বাম্পার ফলন, তবুও শঙ্কিত কৃষক

Spread the love

ডেস্ক রিপোর্ট:

কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর উপজেলাসহ নিকলী, কুলিয়ারচর, অষ্টগ্রাম, ইটনা, মিঠামইন ও ভৈরবে তিনভাগের এক ভাগ হাওড় এলাকায় এ বছর কৃষকের ইরি-বোরো ধানের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে। একই সঙ্গে হুমাইপুর হাওড়ে মড়া রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে বলে জানা গেছে। কৃষকদের কাছ থেকে জানা যায়, এসব হাওড়ে এক লক্ষ হেক্টর জমিতে ইরি-বোরো ধান করা হয়েছে। কিন্তু করোনাভাইরাসের কারণে বাহির থেকে ধান কাটুনী লোকেরা না আসার কারণে তারা বর্তমানে বিপাকে পড়েছেন। প্রতি একর জমি বর্তমানে ৫-৬ হাজার টাকায় দিয়েও ধান কাটুনী শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে না। এরই মধ্যে পহেলা বৈশাখ থেকে কাল বৈশাখী ঝড় শুরু হয়েছে। কৃষকরা এখন শঙ্কিত রয়েছেন বলে জানা যায়। কয়েকজন কৃষকের সাথে শুক্রবার কথা বললে তারা জানান, ইরি-বোরো ধান এবার বাম্পার ফলন হয়েছে কিন্তু করোনার কারণে এসব যেন শেষ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। বাজিতপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, তাদের আবাদী জমির পরিমাণ ১২৩৫০ হেক্টর। এসব জমিতে ৫৬০০০ হেক্টর ইরি-বোরো ধান ফলনের সম্ভাবনা রয়েছে বলে উল্লেখ করেন। তারা বলেন, হুমাইপুর, মাইজচর, কৈলাগ ইউনিয়নকে দিয়ে বাজিতপুর বাসীর ইরি-বোরো ধানের ফলনের আশা করেন। বাজিতপুর উপজেলা কৃষি কর্মকতা এ.বি.এম রকিবুল হাসান জানান, যদি শ্রমিক সংকট না হয় তাহলে এসব হাওড়ে বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করছেন।

Leave a Comment