শ্রমিক দিবেস বরিশালে ক্ষুদ্র পরিবহনে তিনগুন ভাড়া বৃদ্ধি, ভোগান্তিতে যাত্রীরা

Spread the love

 আজ মহান মে দিবস। শ্রমিকদের অধিকার বাস্তবায়নের ঐতিহাসিক দিন হিসেবে বিশ্বব্যাপী পালিত হয় এই দিনটি। দিবসটির তাৎপর্য ও শ্রমিকদের দাবী তুলে ধরে বরিশালে বিভিন্ন কর্মসূচিতে পালন করছে শ্রমিক সংগঠনগুলো। দিবসটিতে সকাল থেকেই অভ্যান্তরীণ রুটে বন্ধ রাখার কথা যান চলাচল।

তবে স্বল্পসংখ্যক যানবাহন চলাচল করলেও অতিব প্রয়োজনে যারা ঘরের বাইরে বের হচ্ছেন তাদের গুনতে হচ্ছে অস্বাভাবিক ভাড়া।শ্রমিক দিবসকে পুঁজি করে বরিশাল নগরীর ক্ষুদ্র পরিবহনে তিন-চারগুন ভাড়া বৃ্দ্ধি পেয়েছে। সড়কের মোড়ে মোড়ে যাত্রীদের ভিড় দেখা গেছে।

রুপাতলীর সুরভী চত্বরে কথা হয় রিংকু বিশ্বাসের সাথে। তিনি জানান, রিকশা, মাহিন্দ্র, ব্যাটারী চালিত অটো বা নীল অটো-কোন কিছুই পাচ্ছেন না। যা পাচ্ছেন তা মুর্হুতেই পূর্ণ হচ্ছে। ফলে নারীরা ঘন্টার পর ঘন্টা দাঁড়িয়ে থেকেও গন্তব্যে যেতে পারছে না।

লঞ্চঘাট এলাকায় কথা হয় কাঁঠালিয়াগামী যাত্রী আমির হােসেনের সাথে। তিনি বলেন, ভোর ৬টা থেকে ৮টা পর্যন্ত দাড়িয়ে থেকেছি। কোন গাড়ি পাইনি। শেষে একটি অটোতে রুপাতলী যাচ্ছি। জনপ্রতি ভাড়া রাখছে ৪০ টাকা করে।নিয়মিত ভাড়া ১০ টাকার স্থলে ৪০ টাকা আদায় করায় অনেকের কাছে বিপত্তি হয়ে দাঁড়িয়েছে।

তিনি জানান, আমরাও শ্রমিক। কিন্তু শ্রমিক দিবসে পরিবহন শ্রমিকদের এমন স্বেচ্ছাচারিতা উচিত নয়।

মাহিন্দ্রা চালক আবুল হোসেন বলেন, যাত্রী বেশি আছে দেখে গাড়ি নিয়ে বেড় হয়েছি। এতে আমারও লাভ, যাত্রীরাও গন্তব্যে যেতে পারবে। তার মতে, শ্রমিক দিবসে গাড়ি বন্ধ রাখলেতো ঘরে বাজার হবে না। অনুষ্ঠানে গেলে এক প্যাকেট বিরিয়ানি পাবো। তার চেয়ে গাড়ি চালালে ঘরের বাজারটা হবে।

ভাড়া বৃদ্ধির বিষয়ে এই চালক বলেন, গাড়ি কম থাকলে দু-চার টাকা বেশি নেই। তা একেবারে বেশি না।
সরেজমিনে নগরী ঘুরে দেখা গেছে, রুপাতলী-সরদর রোড রোডে জনপ্রতি ভাড়া আদায় করা হচ্ছে ২০ টাকা। নথুল্লাবাদ থেকে লঞ্চঘাট ৩০ টাকা, নথুল্লাবাদ থেকে রুপাতলী ভাড়া আদায় করছে ৩০/৪০ টাকা। এছাড়া নগরীতে স্বল্প দূরত্বে যাতায়াত করলে ৫টাকার ভাড়া দিতে হচ্ছে ১০ থেকে ১৫ টাকা।

Leave a Comment