রুপাতলী-ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতির নাটক থেকে মুক্তি চায় যাত্রীরা

Spread the love

রুপাতলী বাস টার্মিনালে ঝালকাঠির শ্রমিকের উপর হামলার প্রতিবাদে দক্ষিণাঞ্চলের আটটি রুটে আবারো বাস চলাচল বন্ধ করে দেওয়ার পরে রবিবার ১৬ই জুন সকাল থেকে ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতি বরিশাল নগরের রুপাতলী বাসস্ট্যান্ড থেকে প্রায় তিন কিলোমিটার দূরে কালিজিরা ব্রিজের ওপারে নিজেদের নিয়ন্ত্রিত রায়াপুরা এলাকায় অস্থায়ী বাস টার্মিনাল থেকে তারা যাত্রী পরিবহন শুরু করে।

অপরদিকে সকালে বরিশাল মালিক সমিতির বাস ঝালকাঠির উদ্দেশে ছাড়া হলে রায়াপুর নামক স্থানে তা আটকে দেওয়া হয়। কিন্তু ঝালকাঠি বাসস্ট্যান্ডে বরিশালের বাস গেলে গাড়ি ভাংচুর ও স্টাফদের মারধর করার অভিযোগ মেলে।
বরিশাল-পটুয়াখালী মিনিবাস সমিতির সাধারাণ সম্পাদক কাওসার হোসেন শিপন বলেন, দীর্ঘদিন ধরে ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতির সাথে আমাদের দন্ধ চলে আসছে। গত বিভাগীয় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে ঈদের আগে তা স্বাভাবিক হলেও আবারও আমদের বাস বন্ধ করে দিয়েছে ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতি। ঝালকাঠি জেলার সীমান্তে তারা আমাদের বাস ভাংচুর ও স্টাফদের মারধর করে।

ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতির যুগ্ম সম্পাদক নাছির উদ্দিন জানান,গত বছর বিভাগীয় প্রশাসনের হস্তক্ষেপে বারবার বাস চলাচল স্বাভাবিক করা হলেও বরিশাল মালিক সমিতির কারণে তা প্রতিবারই বন্ধ হয়ে যায়। বরিশাল বাস মালিক সমিতির সাথে একাত্মতা পোষণ করে গত ১৫ তারিখ থেকে পিরোজপুর বাস সমিতি তাদের এলাকায় আমাদের বাস চলাচল করতে বাধা দেয় তাই বর্তমানে আমাদের বাস রায়াপুর থেকে ঝালকাঠি, রাজাপুর চলাচল করছে।

উল্লেখযোগ্য- ন্যায্য দাবি আদায়ের জন্য নিয়ে বরিশাল বাস মালিক সমিতির সঙ্গে ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতির দেখা দিলে, বর্তমানে পিরোজপুর জেলার সাথেও ঝালকাঠি জেলার বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। ফলে ঝালকাঠি বাস মালিক সমিতির কোনো বাস বরিশালে, পিরোজপুরে প্রবেশ করতে পারে না এবং বরিশালের রুপাতলীস্থ বরিশাল-পটুয়াখালী মিনিবাস সমিতির কোনো বাস ঝালকাঠিতে যেতে পারতো না। এই সমস্যার সমাধানে প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন সাধারণ যাত্রীরা।

Leave a Comment