বরিশালে ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় তৎপর শেখ হাসিনা সেনানিবাসের ৭ পদাতিক ডিভিশন

Spread the love

ডেস্ক রিপোর্ট:/

 বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট প্রচ- শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ আরও শক্তি সঞ্চয় করে বাংলাদেশের দক্ষিণ-পশ্চিম উপকূলীয় অঞ্চলের দিকে ঘনিয়ে আসছে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে উপকূলীয় জেলাসমূহ যেমন-বাগেরহাট, পটুয়াখালী, বরগুনা, বরিশাল, ঝালকাঠি ও পিরোজপুর জেলায় ভারী বৃষ্টিপাতসহ ঝড়ো হাওয়া বয়ে যাচ্ছে।

এমন প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ৭ পদাতিক ডিভিশন ধেয়ে আসা এই প্রবল ঘূর্ণিঝড় মোকাবেলায় সর্বাত্মক পূর্ব প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। স্থানীয় অসামরিক প্রশাসনের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ ও সমন্বয়ের মাধ্যমে সম্ভাব্য ঝুঁকিসমূহ নির্ধারণ করে ঘূর্ণিঝড়-পরবর্তী উদ্ধার ও ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনার লক্ষ্যে এ অঞ্চলের পাঁচটি জেলার (বরিশাল, পটুয়াখালী, বাগেরহাট, পিরোজপুর, ঝালকাঠি) সকল উপজেলায় সেনাদল দ্রুত মোতায়েনের পূর্ব-প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে। প্রত্যেকটি উপজেলায় উদ্ধার-তৎপরতা পরিচালনার জন্য অফিসারের নেতৃত্বে প্রয়োজনীয় জনবল, যানবাহন ও অন্যান্য প্রয়োজনীয় সরঞ্জামাদিসহ আলাদাভাবে প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

স্থানীয় অসামারিক প্রশাসনের চাহিদা অনুসারে প্রয়োজনীয় সম্ভাব্য উদ্ধারসামগ্রী এবং নৌপথে উদ্ধার-তৎপরতা চালানোর লক্ষ্যে বিশেষ ধরনের নৌযান ‘ট্রাই শার্ক’ বোট প্রস্তুত রাখা হয়েছে। দুর্যোগ পরবর্তী প্রাথমিক মানবিক ত্রাণ তৎপরতা পরিচালনার জন্যে খাবার ও রশদসামগ্রীসহ পর্যাপ্ত সংখ্যক খাবারের প্যাকেট ও প্রয়োজনীয় খাবার পানি প্রস্তুত রাখা হয়েছে। সম্ভাব্য আহত ও অসুস্থ দুর্গত লোকজনকে চিকিৎসা-সহায়তা প্রদানের লক্ষ্যে উপজেলা প্রতি একটি করে মেডিক্যাল টিম প্রস্তুত রাখা হয়েছে।

চিকিৎসা সেবা প্রদানের লক্ষ্যে জীবনরক্ষাকারী ওষুধ ও যন্ত্রপাতিসহ অ্যাম্বুলেন্স প্রস্তুত রয়েছে ও সম্ভাব্য হতাহতদের জরুরি উদ্ধারকার্য পরিচালনার জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে। ঝড়ের অবস্থা সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণ ও বিভিন্ন কার্যাদি সমন্বয়ের জন্য ২৪ ঘণ্টার জন্য ‘ফরমেশন কন্ট্রোল সেল’ কার্যক্রম পরিচালনা করছে, যাতে করে যে কোন জরুরি পরিস্থিতিতে নিবিড়ি উদ্ধার ও ত্রাণ তৎপরতা পরিচালনা করা যায়। সর্বোপরি অসামরিক প্রশাসনের সঙ্গে সমন্বয় ও প্রয়োজনবোধে দুর্যোগ-পরবর্তী উদ্ধারকার্য পরিচালনার জন্য ৭ পদাতিক ডিভিশন তথা বাংলাদেশ সেনাবাহিনী সর্বোতভাবে প্রস্তুত ও তৎপর রয়েছে।


Leave a Comment