বরগুনায় স্কুলছাত্রকে হাত-পা বেঁধে ভাঙ্গা নৌকায় ফেল গেল অপহরণকারীরা

Spread the love

ডেস্ক রিপোর্ট /

বরগুনার পাথরঘাটা পৌর এলাকার বেরিবাঁধ এলাকা থেকে এক স্কুল ছাত্রকে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। শনিবার দিবাগত রাত আটটার দিকে তাকে উদ্ধার করা হয়।

এর আগে শুক্রবার বেলা দুইটায় দিকে বরগুনা রংধনু ক্লিনিকের সামনে থেকে রুমালে চেতনা নাশক ঔষধ দিয়ে তাকে অপহরণ করে অজ্ঞাত কয়েকজন।
উদ্ধার হওয়া স্কুল ছাত্রের নাম আরিফুল ইসলাম (১৪)। তিনি বরগুনার সদর উপজেলার জাকিরতবক এলাকার আব্দুল হালিম মিয়ার ছেলে এবং বরগুনা উদয়ন স্কুল এন্ড কলেজের নবম শ্রেণীর শিক্ষার্থী।

ওই স্কুল ছাত্র আরিফুল ইসলাম জানান, স্কুল ছুটির পরে বরগুনা সদরের নুর লাইব্রেরীতে গাইড কিনতে যাই। সেখানে গিয়ে দোকান বন্ধ পেয়ে রুমে ফিরে যাওয়ার পথে কিছু লোক আমার পিছু নেয়। রংধনু ক্লিনিকের সামনে থেকে আসার সময় তার মুখে রুমাল ধরে অজ্ঞান করে একটি লাল মোটরসাইকেলে উঠায় বলে মনে পরে। এরপর হুঁশ ফিরেলে তিনি নদীর পাড়ে একটি ভাঙ্গা নৌকায় হাত পা বাঁধা ও মুখে টেপ দিয়ে আটকানো অবস্থায় নিজেকে আবিষ্কার করেন।

আরিফুল ইসলামের মা রিনা বেগম জানান, তার ছেলে বরগুনার উদয়ন স্কুল এন্ড কলেজের প্রধান শিক্ষকের বাসায় থেকে লেখাপড়া করে। শনিবার বাড়ি থেকে স্কুলে গিয়ে ক্লাস করে প্রধান শিক্ষক জাকির হোসেনের বাসায় যায়। সেখান থেকে গাইড কিনতে বের হয়ে বাসায় ফিরে না যাওয়ার বিষয়টি প্রধান শিক্ষক আমাকে জানালে বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করি। পরে রাত সাড়ে দশটার দিকে পাথরঘাটা থানা থেকে আরিফকে উদ্ধার হওয়ার কথা জানতে পারি।

পাথরঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. শাহাবুদ্দিন বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, রাত আটটার দিকে বেরিবাঁধ এলাকা থেকে স্থানীয়রা সংবাদ দিলে সেখান থেকে আরিফকে হাত পা বাঁধা অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। ওই ছাত্রের বুকে ব্লেড দিয়ে আঁচড়ের দাগ রয়েছে।

তিনি আরো জানান, স্কুল ছাত্রকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে থানায় নিয়ে আসা হয়েছে। জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Leave a Comment