ঝালকাটিতে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মাদক বিরোধী প্রচারনা ও সচেতনতা মূলক সেমিনার অনুষ্ঠিত

Spread the love

ঝালকাটিতে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মাদক বিরোধী প্রচারনা ও সচেতনতা মূলক সেমিনার অনুষ্ঠিত

রিপোর্ট : ইমাম বিমান

ঝালকাঠিতে সদর উপজেলা প্রশাসনের নেতৃত্বে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে মাদক বিরোধী প্রচারনা ও সচেতনতা মূলক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২৮ জানুয়ারী মঙ্গলবার ঝালকাঠি সদর উপজেলাধীন গাভারামচন্দ্রপুর ইউনিয়নস্থ শাহ মাহমুদিয়া কলেজ ও ভারুকাঠি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে মাদক বিরোধী প্রচারনা ও সচেতনতা মূলক সেমিনার অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল ১১টায় শাহ মাহমুদিয়া কলেজের সেমিনার কক্ষে বাংলা বিভাগের প্রভাষক কৃষ্ণ চন্দ্র বনিকের সঞ্চালনায় ও কলেজে অধ্যক্ষ মো: নূরুল ইসলামের সভাপতিত্বে সেমিনারে দ্বদশ শেনীর ছাত্র মো: মনিরুজ্জামানের পবিত্র কোরআন তেলোয়াতের মাধ্যমে অনুষ্ঠান শুরু হয়। এরপরে কলেজের পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক অর্পনা বড়াল গিতা পাঠ করেন। অনুষ্ঠানে বাংলা বিভাগের প্রভাসক কৃষ্ণ চন্দ্র বনিকের সঞ্চালনায় এবং কলেজের অধ্যক্ষ নূরুল ইসলাম তালুকদারের সভাপতিত্বে মাদক বিরোধী প্রচারনা ও সচেতনতা মূলক সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন মোসা: তানিয়া ফেরদৌস, ঝালকাঠি সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকতা। এ সময় তিনি উপস্থিত শিক্ষক, ছাত্র-ছাত্রী ও অভিভাবকদের উদ্দেশ্য মাদকের বিরুদ্ধে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষে পারিবারিক, সামাজিক ও প্রাতিষ্ঠানিক ভাবে কাউন্সিলিং করার আহবান জানান। এ সময় তিনি তার বক্তব্যে মাদক সম্পর্কে প্রাথমিক ভাবে তামাকজাত দ্রব্য যেমন তামাকজাত দ্রব্য বিড়ি, সিগারেট, জর্দা, গাজা ইত্যাদী নেশাজাত দ্রব্য ইয়াবা, ফেন্সিডিল, আফিন, কোকেন ইত্যাদির কুফল সম্পর্কে বলেন। সেই সাথে বিড়ি, সিগারেটের কুফলের উদাহরনের মাধ্যমে তিনি ছাত্রছাত্রীদের উদ্দেশ্য করে বলেন, আমাদের মনে রাখতে হবে, মাদকের ” শুরু হয় সিগারেট দিয়ে যার শেষ হয় মৃত্যু ” তাই তোমরা বাড়িতে গিয়ে তোমাদের বাবা -মাকে বিড়ি, সিগারেট, জর্দা খাওয়া থেকে বিরত রাখর চেষ্টা করবে। মনে রাখবে তোমাদের তথা সন্তানদের মঙ্গলের জন্য সকল বাবা-মাকে সন্তান যদি এগুলো পরিহার করতে বলে অবশ্যই বাবা-মায়েরা এগুলো পরিহার করবে বলে আমি মনে করি। তবে সকলেকেই মনে রাখতে হবে বাবা-মাকে তামাকজাত পন্য পরিহারের ক্ষেত্রে ছাত্রছাত্রী কে এগিয়ে আসতে হবে। এ ক্ষেত্রে অভিভাবকদেরকেও তার সন্তানকে মাদকের কুপল থেকে বাচাঁতে হলে একই পথ অবলম্বন সহ বাড়তি কিছু সতর্কতা থাকতে হবে। একজন অভিভাবকের মনে রাখতে হবে আপনার সন্তান স্কুল-কলেজ- মাদ্রাসায় যাওয়ার কথা বলে আসলে সে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাচ্ছে কি না ? সন্ধা হওয়ার সাথে সাথে আপনার সন্তান ঘরে ফিরছে কি না ? সে রিতিমত সঠিক ভাবে খাওয়া দাওয়া করছে কি না এগুলোর দিক বিশেষ ভাবে খেয়াল রাখতে হবে। বর্তমান সরকার ও তার প্রশাসন মাদকের বিরুদ্ধে সচ্চার তাই মাদক মুক্ত দেশ গড়ার লক্ষে মাদক বিরোধী আইন প্রনয়নের ক্ষেত্রেও এনেছেন আমুল পরিবর্তন। তাই ছাত্রছাত্রীরা আগে থেকে সচেতন হও, সরকার আগামীতে সরকারি চাকুরিতে নিয়োগের ক্ষেত্রে কোন প্রকার মাদকাসক্তদের নিয়োগ দিবে না, নিয়োগের পূর্বে প্রার্থী মাদকাসক্ত কি না তা ডোপ টেষ্টের মাধ্যমে যাচাই পূর্বক নিয়োগ করা হবে। তাই সবাই হাত তুলে আমরা একসাথে মাদককে না বলি। উক্ত সেমিনারে মাদকের কুফল সম্পর্কে আরো বক্তব্যে রাখেন, গোপাল মন্ডল সহকারী অধ্যাপক ভূগোল, মো সিরাজুল ইসলাম সহকারী অধ্যাপক ইসলাম শিক্ষা। এছাড়াও সেমিনারে কলেজে কর্মরত অধ্যাপক, প্রভাষকগন উপস্থিত ছিলেন। শাহমাহমুদিয়া কলেজের সেমিনার শেষে ভারুকাঠি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে দুপুর সাড়ে বারোটায় ভারুকাঠি মাধ্যমিক বিদ্যালয় কতৃক আয়োজিত মাদক বিরোধী প্রচারনা ও সচেতনতা মূলক সেমিনারে অংশ গ্রহন করেন। এ সময় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি সকলের উদ্দেশ্যে মাদক বিরুদ্ধে সোচ্চার থাকার আহবান জানান।

Leave a Comment