কিশোরগঞ্জের ভৈরব থানার ৭ পুলিশ সদস্য পেলেন করোনা মুক্ত ছাড়পত্র

Spread the love


কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি :

কিশোরগঞ্জের ভৈরব থানায় কর্মরত করোনায় আক্রান্ত ৭পুলিশ সদস্য এখন করোনামুক্ত। আইসোলেশনে থাকা অবস্থায় দ্বিতীয় ও তৃতীয় পরীক্ষায় করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট আসায় আজ শনিবার দুপুরে তাদেরকে ছাড়পত্র দেয়া হয়েছে। এ নিয়ে কিশোরগঞ্জে করোনা আক্রান্ত দুই এস আইসহ নয় পুলিশ সদস্য করোনামুক্ত হয়েছে বলে জানা গেছে। কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অর্নিবাণ চৌধুরী জানান, কিশোরগঞ্জের ভৈরব থানায় কর্মরত পুলিশ সদস্য মো. আব্দুস সামাদের শরীরে ১৬ এপ্রিল তারিখে করোনা উপসর্গ দেখা দিলে তিনি ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন। পরদিন আইইডিসিআরের তার নমুনায় করোনা পজেটিভ ধরা পড়ে। এর পর থেকেই আব্দুস সামাদ শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন ছিলেন। গত ২৩ এপ্রিল দ্বিতীয় ও ২৮ এপ্রিল তারিখে তৃতীয় রিপোর্টে আব্দুস সামাদের নমুনায় করোনা নেগেটিভ আসায় শনিবার দুপুরে তাকে করোনামুক্ত বলে ছাড়পত্র হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। চিকিৎসকরা পুলিশ সদস্য আব্দুস সামাদকে আগামী ১৪ দিন নিজ বাড়িতে হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন বলে তিনি জানান। তিনি আরো জানান, ভৈরব থানার পুলিশ সদস্য দুলাল কবির (৩৫), জামাল উদ্দিন (৩৫) কর্তব্যরত অবস্থায় করোনার উপসর্গ দেখা দিলে ১৬ এপ্রিল এ দুজন ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ভর্তি হন। পরদিন তাদের নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআরে পাঠানো হলে করোনা পজেটিভ রিপোর্ট আসে। এরপর থেকেই তারা ট্রমা সেন্টারের অধীনে নিজ বাড়িতে চিকিৎসাধীন ছিলেন। এছাড়া ভৈরব থানার পুলিশ সদস্য তানজিল আহম্মেদ (২৪), আমিনুল ইসলাম (২৮), আব্দুর রহিম (৩০) ও নারী পুলিশ সদস্য সোনিয়া আক্তার কর্মরত অবস্থায় করোনার উপসর্গ নিয়ে ১৮ এপ্রিল ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্যকমপ্লেক্সে ভর্তি হওয়ার পর তাদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়। পরদিন তাদের নমুনাতেও করোনা পজেটিভ রিপোর্ট আসে। চিকিৎসকের পরামর্শে নারী পুলিশ সদস্য সোনিয়া আক্তারকে নিজ বাড়িতে চিকিৎসাধীন রাখা হয়। অন্যরা ভৈরবের শহীদ আইভি রহমান স্টেডিয়ামের আইসোলেশনে রাখা হয়। গত ২৫ এপ্রিল দ্বিতীয় ও ২৯ এপ্রিল তারিখে তৃতীয় পরীক্ষায় সবার করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট আসায় তাদেরকে করোনামুক্ত বলে ছাড়পত্র দেয়া হয়। তবে এ ছয় পুলিশ সদস্য নিজ বাড়িতে সাতদিন কোয়ারেন্টাইনে থাকার নির্দেশ রয়েছে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার অনির্বাণ চৌধুরী জানান। এর আগে করোনায় আক্রান্ত ভৈরব থানার এসআই মো. চান মিয়া গত ২৮ এপ্রিল কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল থেকে ও ৩০ এপ্রিল এস আই দেলোয়ার হোসেন পাটোয়ারী শহীদ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে করোনামুক্ত ছাড়পত্র পেয়েছেন। এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার মাশরুকুর রহমান খালেদ বিপিএম (বার) জানান, করোনা প্রতিরোধে মাঠে দায়িত্বপালন করাকালে ভৈরব থানার ১১জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছিলেন। তাদের মধ্যে মোট নয়জন সুস্থ হয়েছেন। আরো দুইজনের মধ্যে একজন ভৈরবের ট্রমা সেন্টারে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। তার দ্বিতীয় রিপোর্ট করোনা নেগেটিভ এসেছে। তৃতীয় রিপোর্ট আসার পর তার সম্পর্কে বলা যাবে। এছাড়া শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসোলেশনে একজন পুলিশ সদস্য চিকিৎসাধীন রয়েছেন বলে তিনি জানান।

Leave a Comment