করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে কঠোর অবস্থানে ঝালকাঠি জেলা পুলিশ

Spread the love

মোঃ মনির হোসেন ঝালকাঠি প্রতিনিধি :

বিশ্বব্যাপী আলোড়ন সৃষ্টিকারী কোভিড-১৯ তথা করোনা ভাইরাসের প্রভাব বাংলাদেশে পরিলক্ষিত হওয়ার সাথে সাথে গনপ্রজাতন্ত্রী এ দেশের সরকারের লকডাউন যেমন সফলতা বয়ে আনছে। আর এ সফলতার বড় অংশের দাবীদার নিসন্দেহে বাংলাদেশ পুলিশ বাহিনীর। লকডাউন এ দেশ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সরকারের নির্দেশে ও বাংলাদেশ পুলিশ হেডকোয়াটারের নির্দেশনায় করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সারাদেশের ন্যায় কঠোর অবস্থানে ঝালকাঠি জেলা পুলিশ। করোনা ভাইরাস আক্রান্তের সংবাদে প্রথম থেকেই ঝালকাঠি জেলা পুলিশ সুপার ফাতিহা ইয়াসমিনের নেতৃত্বে জেলা পুলিশ সর্বদা মহামারী করোনা ভাইরাস সংক্রামন প্রতিরোধে কঠোর অবস্থানে রয়েছে।আর এ অবস্থানে থেকে জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে জনসাধারণের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টির জন্য প্রতেক থানায় করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে জনগনকে সচেতন করতে লিফলেট বিতরন, মাইকিং করার মাধ্যমে জেলার সবস্থানে প্রচারাভিযান চালিয়ে আসছেন। বর্তমান লকডাউন দেশে করোনা ভাইরাস সংক্রামনের তৃতীয় ধাপে অাসলেও জেলা পুলিশ সুপার ফাতিহা ইয়াসমিন প্রতিদিনই তার জীবনের পরোয়া না করে জেলা বাসীর সুরক্ষা দানে নিজ জীবনের ঝুকি নিয়ে জেলা পুলিশ সদস্যদের সাথে করে জেলার বিভিন্ন উপজেলা ও ইউনিয়ন ঘুরে ঘুরে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে জনগনের মাঝে সচেতনতা সৃষ্টি করে যাচ্ছেন। পাশাপাশি জনগনকে জরুরী প্রয়োজন ছাড়া নিজ বাড়ী থেকে বাহিরে বের না হতে আহবান জানিয়ে আসছেন। বিদেশ থেকে ফেরৎ আসা ব্যক্তিদের হোমকোয়ারাইন্টান নিশ্চিত করতে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে সদর থানা সহ প্রত্যেকটি থানার কর্মকর্তা ও পুলিশ সদস্যরা। ঝালকাঠি জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে জনসচেতনতায় জেলা শহর, উপজেলা শহর সহ জেলার বিভিন্ন স্থানে মোটর সাইকেলে চালক ছাড়া অন্য কোন ব্যক্তি নিয়ে চলাচলে নিষেধাজ্ঞা জারি করছেন। এছাড়াও লকডাউনে সামাজিক দূরুত্ব বজায় রাখতে জেলা প্রশাসন কতৃক ঘোষিত বিকেল ৫টার পর ফার্মেসী ছাড়া অন্য সকল দোকান বন্ধ রাখার নির্দেশ অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য অভিযান পরিচালনায় শহর ছাড়াও ছুটে যাচ্ছেন প্রত্যন্ত গ্রামগঞ্জে, হাট-বাজারে। একই সাথে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার মাধ্যমে অসহায় গরীব পরিবার, কর্মহীন মানুষের বাড়ি বাড়ি গিয়ে তাদের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ সহ জেলায় অবস্থানরত তৃতীয় লিঙ্গ হিজড়া সম্প্রদায়, বেঁদে সম্প্রদায়ের মাঝেও খাদ্য সামগ্রী বিতরন করে আসছেন যা বর্তমানেও চলমান রয়েছে। গতকাল ৫ এপ্রিল দিনে জেলা পুলিশ সুপারের নেতৃত্বে জেলার রাজাপুর উপজেলার বাঘড়ী বাজার, বাইপাস মোড় এলাকা, নলছিটি উপজেলার পুরাতন ভিআইপি কলোনী এলাকায় বিশেষ অভিযানের মাধ্যমে জনসচেতনতামূলক প্রচারনা চালান এবং জনগণকে সচেতন থাকতে উদ্বুদ্ধ করেন। দিনে অভিযান পরিচালনার মাধ্যমে জেলায় কর্মহীন মানুষদের তালিকা শেষে রাতে সামাজিক দুরত্ব বজায় রাখার মাধ্যমে কর্মহীন গরীব মানুষের বাড়ী বাড়ী গিয়ে জেলা পুলিশ সুপার ফাতিহা ইয়াসমিন নিজ হাতে খাদ্য সামগ্রী বিতরন করেন। এসময় মোঃ হাবীবুল্লাহ,অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অপরাধ), কাজী মোঃ ছোয়াইব, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর), এম.এম. মাহমুদ হাসান, পিপিএম (বার), অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, সদর সার্কেল, সহ নলছিটি ও রাজাপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তগন যার য়ার থানা এড়িয়ায় পুলিশ সুপার বিশেষ অভিযান পরিচালনা সহ রাতের গরীবদের বাড়ীতে গিয়ে খাদ্য সামগ্রী দিয়ে আসছেন।

Leave a Comment