করোনায় মৃত্যুর হারে এশিয়ায় প্রথম বাংলাদেশ

Spread the love

ডেস্ক রিপোর্ট:

করোনাভাইরাসের প্রভাব অন্য দেশের মতো বাংলাদেশেও দেখা দিয়েছে। এশিয়ার মধ্যে মৃত্যুর হারে প্রথমেই রয়েছে বাংলাদেশ। চীনের উহান রাজ্য থেকে করোনাভাইরাস এখন বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে। গতকাল শনিবার পর্যন্ত আক্রান্তের সংখ্যা সাড়ে ১১ লাখ ছাড়িয়েছে। ৬১ হাজারের ওপরে মানুষের মৃত্যু হয়েছে। বাংলাদেশে এখনও এই ভাইরাসের সংক্রমণ এতটা দেখা যাচ্ছে না। জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, দেশে পরীক্ষার হার কম। এ কারণে সংক্রমণের হারও কম। গত দু’দিনে পরীক্ষার পরিধি বৃদ্ধির পর আক্রান্তের সংখ্যাও বাড়তে শুরু করেছে। এই পরিধি বাড়ানো হলে আরও আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্ত হবে। পরীক্ষার মাধ্যমে যত বেশি আক্রান্ত ব্যক্তি শনাক্ত করা যাবে, তত বেশি পদক্ষেপ গ্রহণ করে এই রোগ প্রতিরোধ করা সম্ভব হবে।

করোনা পরিস্থিতি নিয়ে সার্বক্ষণিক হালনাগাদ তথ্য দিচ্ছে ওয়ার্ল্ডওমিটার নামে একটি ওয়েবসাইট। এই ওয়েবসাইটের তথ্য পর্যালোচনা করে দেখা যায়, বাংলাদেশে করোনায় মৃত্যুহার করোনার হানায় লণ্ডভণ্ড ইতালির প্রায় কাছাকাছি। এমনকি মৃত্যুতে এগিয়ে থাকা যুক্তরাজ্য, স্পেন ও ফ্রান্সের তুলনায় বাংলাদেশে প্রাণহানির হার বেশি। দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মধ্যে মৃত্যুহারের দিক দিয়ে বাংলাদেশের আশপাশেও কেউ নেই। অন্যদিকে পরীক্ষা-নিরীক্ষায় এসব দেশের তুলনায় বাংলাদেশ যোজন যোজন পিছিয়ে রয়েছে। এদিকে, পরীক্ষার পরিধি বাড়ানোর পর এক দিনেই নতুন করে ৯ জনের শরীরে করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হয়েছে।

এ ছাড়া গত চব্বিশ ঘণ্টায় দু’জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৭০ জনে পৌঁছাল। মৃতের সংখ্যা বেড়ে আটজনে পৌঁছাল। গত ৮ মার্চ দেশে করোনার সংক্রমণ শনাক্ত হওয়ার পর এটিই এক দিনে আক্রান্তের সর্বোচ্চ সংখ্যা। তবে আক্রান্ত ব্যক্তিদের মধ্যে আরও চারজন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। এ নিয়ে সুস্থ হয়ে মোট ৩০ জন বাড়ি ফিরলেন। গতকাল শনিবার করোনা পরিস্থিতি নিয়ে ভার্চুয়াল ব্রিফিংয়ে নতুন আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা তুলে ধরেন আইইডিসিআরের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা।

Leave a Comment