আদালতের নির্দেশে বন্দ হওয়া ঝালকাঠির ৬টি কারখানার শ্রমিকরা দিশেহারা

Spread the love

 
ইমাম বিমান:: ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ সমগ্র বাংলাদেশে বিএসটিআই এর পরীক্ষায় নিম্মমান প্রমানিত হওয়ায় মহামান্য হাইকোর্টের আদেশে ৫২ টি পন্য বাজার থেকে প্রত্যাহারের নির্দেশে বন্ধ হয় অনেক কারখানা। আর এ বন্ধ হওয়া কারখানার মধ্যে ঝালকাঠি জেলার ৫টি লবন ও ১টি সেমাই মিল রয়েছে। 
মহামান্য হাই কোর্টের আদেশে বন্ধ হয়ে যাওয়া ঝালকাঠির ৬টি কারখানায় কর্মরত ছিল ৫ শতাধিক শ্রমিক। কারখানা বন্ধ হয়ে যাওয়াতে এ সকল শ্রমিক এখন বেকার হয়ে পরেছে। আর এই বেকারত্ব শ্রমিকদের করেছে অসহায়।  প্রতিদিন দিনই তারা তালাবদ্ধ কারখানার সামনে এসে অপেক্ষার প্রহর গুনছে কবে আবার চালু হবে কারখানা। হতাশা গ্রস্থ এসকল শ্রমিকের  মনে করছেন আসন্ন পবিত্র ঈদ তাদের জীবনে আনন্দের পরিবর্তে কান্না নিয়ে আসছে।  আসন্ন ঈদ উদযাপন দূরে থাক পরিবার পরিজনের খাবার যোগার কিভাবে হবে তাও তাদের অজানা।
মাত্র সপ্তাহ খানেক আগে এই সব কারখানা ছিল শ্রমিকদের কর্মচাঞ্চল্য আর মেশিনের শব্দে মুখরিত। কিন্তু বিএসটিআই এর পরীক্ষায়  নিম্ম মানের প্রমানিত হওয়ায়মহামান্য হাইকোর্টে যে ৫২টি পন্য বাজর থেকে প্রত্যাহারের নির্দেশ দিয়েছে তার ৭টিই ঝালকাঠির ৬টি কারখানার। এর মধ্যে ৫টি লবন ও একটি সেমাই কারখানা রয়েছে। পন্য গুলো হলো নিউ ঝালকাঠি সল্ট মিলের দাদা সুপার আয়োডিন লবন, তাজ সল্টের তাজ আয়োডিন লবন, কোয়ালিটি সল্টের তিন তীর আয়োডিন লবন, লাকি সল্টের মদিনা ও ষ্টারশিপ আয়োডিন লবন, নূর সল্টের নূর স্পেসাল আয়োডিন লবন এবং জেদ্দা ফুড ইন্ডাষ্ট্রি এর জেদ্দা লাচ্চা সেমাই। হাইকোর্টের আদেশের পরপরই মালিক পক্ষ কারখানাগুলো বন্ধ করে দিয়েছে। যার ফলে বেকার হয়ে পরেছে এসব কারখানার উৎপাদন বিভাগে কর্মরত ৫ শতাধিক শ্রমিক।
অপরদিকে মিল কারখানা মালিকরাও বড় ধরনের লোকসানের মুখে পরেছেন। তারা আইনের প্রতি শ্রোদ্ধাশীল হয়ে কারখানা পুনরায় চালু করার লক্ষ্যে বিএসটিআই এর কাছে নতুন করে নমূনা পরীক্ষার আবেদন করেছে। এ বিষয় এসকল কারখানা মালিক পক্ষ থেকে  জানিয়েছেন, শ্রমিকরা প্রতিদিন তালাবদ্ধ মিলের সামনে এসে হতাশ হয়ে ফিরে যাচ্ছে। হাইকোর্টের নির্দেশ আনুযায়ী তারা (মালিক) বাজারে সরবরাহ করা পন্য ফেরত এনে বিনস্ট করে ফেলছেন। এতে বিশাল অংকের লোকসানের মুখে পরতে হচ্ছে। তবে দূরত্বের কারনে এখনো সব পন্য ফিরিয়ে আনা যায়নি বলে তারা জানান। 
এ বিষয় ঝালকাঠি লবন মিল মালিক সমিতির সাধারন সম্পাদক মো: জামাল শরীফ জানান, তারা নতুন করে সেম্পলিং এর জন্য বিএসটিআই এর কাছে আবেদন করেছেন। কতৃপক্ষের অনুমোদন পেলে নতুন করে উৎপাদন শুরু করা হবে।

Leave a Comment